Senior Doctor Jokhon Bou Golpo 2022

Ajker Alochonar Bisoy Hochhe Ek Senior Doctor Jokhon Bou Golpo Ochena Meyer Sathe Biye 2022 . Meyeta amar kache doctor hote aseche kintu ami jani je meyeta sir er nijer meye . Ami dekhei crush 🥰 kheyechi . To bondhura Senior Doctor Jokhon Bou Golpo ti dekhte thakun ajker dustu misti valobasar golpo . Are amader comment kore janaben ajker Doctor Jokhon Adure Bou ti kamon hoyeche .

Doctor Jokhon Bou

আজকে আমার কলেজে এক্সাম আছে তাই সবকিছু রেডি করতে আমার মা আমাকে হেল্প করছে ।
কলেজের হেড ডাক্তার আমাকে বলেছিল বিশেষ একটা মেয়ে আসবে তার এক্সাম যাতে আমি ভালোমতো নেই জেসে ডাক্তার হওয়ার যোগ্য কিনা আমিও উনাকে কোন প্রশ্ন জিজ্ঞেস না করে হ্যাঁ বলে দিয়েছিলাম উনার কথায় ডাক্তার হওয়ার আগে ছাত্র-ছাত্রীদের পরীক্ষা নেওয়ার সময় আমাদের কিছু বিশেষ বিশেষ এক্সপেরিমেন্ট করতে দিতে হয় তাদেরকে আর আমি আজকে সেই এক্সপেরিমেন্ট করতে দেব দিশা কে প্রিন্সিপাল ডাক্তার আমাকে মেয়েটার পরিচয় আগে থেকেই দিয়ে দিয়েছিল আর এই বলেছিল যে মেয়েটা নার্ভাস আছে কিনা এক্সপ্রেমেন্ট করার সময় তা খেয়াল রাখবে ।

যদি আমি দেখতে পাই যে মেয়েটা ঘরে যাচ্ছে এক্সপেরিমেন্ট করার সময় তাহলে তাকে জাতি আমি ডিসকোয়ালিফাই করে দিই আমিও ঠিকই আছে স্যার কে বলে দিলাম । ( Doctor Jokhon Bou )


মেডিকেল কলেজে আসার পরে যেই এক্সাম হলে এক্সাম হবে আমাকে সেখানে যে লাইনে দাঁড়ালাম কারণ অনেক জায়গা থেকে অনেক ছেলে মেয়েরা এসেছে যারা আমার মত পরীক্ষার্থী আর তাই লম্বা লাইন হয়ে রয়েছে লাইনে দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে ডাক্তারি বই পড়ছিলাম । তখন পিছন থেকে একজন ডাক দিলো আমি তাকিয়ে দেখলাম আমার কলেজের এক ফ্রেন্ড । সেই এক্সাম দিতে এসেছে এবার আমরা কিছুক্ষণ কথা বললাম আর এরই মধ্যে ডাক পড়লো আমার ।


ওই মেয়েটা আসার পর আমি তার নাম জিজ্ঞেস করলাম সে তার নাম বললে আমি বুঝতে পারলাম যে সেই দিশা । এই হল আমার হেডস্যারের ডাক্তারের বিশেষ ছাত্রী যার কথা আমাকে বলা হয়েছিল হেডস্যার কেন আমাকে উনার কথা উল্লেখ করেছিল তা আমি এখনও জানি না আমিও উনাকে জিজ্ঞেস করিনি যে অনেক স্টুডেন্ট তো এক্সাম এখানে দিতে আসে । এই কলেজে কিন্তু উনার নামে কেন উল্লেখ করলেন তিনি কারণটা আমি ছোটবেলা থেকেই মেয়েদের সাথে বেশি কথা বলতাম না আর ইন্টারেস্ট ছিল না তেমন মেয়েদের প্রতি ।

এক্সাম নেওয়ার সময় উনি আমাকে কিছু এক্সপেরিমেন্ট করতে দিলেন আমি ফাস্টে আমার চোখ বন্ধ করে একটা দীর্ঘনিঃস্বাস ফেললেন তারপর চোখ খুলে সাহস নিয়ে একটা এক্সপেরিমেন্ট শুরু করলাম । ( Doctor Jokhon Bou )

আমি তখন মেয়েটার দিকে একদৃষ্টিতে চেয়ে থাকলাম যে মেয়েটা এক্সপেরিমেন্ট করতে কোন ভয় পাচ্ছে কিনা কিন্তু না সে আমাকে অবাক করে দিয়ে সাহসের সাথে নির্ভয় এক্সপেরিমেন্ট করে চলছে আর সাকসেস হলো । তখন আমি মেয়েটার দিকে তাকিয়ে দেখলাম মেয়েটা অনেক খুশি হয়ে হাসতে লাগল আমাকে পছন্দ হলো কেউ একটা কাজে জিতে গেলে যে এত খুশি হয় তা তার চেহারায় প্রকাশ পেল সেটা আমি ভালোভাবে বুঝতে পারলাম ।


এই নিন আমার এক্সপেরিমেন্ট করা শেষ আর দেখবেন এক্সপ্রেমেন্ট টা ঠিক হয়েছে আমার আমি আর আমার রেজাল্ট কবে পাবো স্যার ?
বেশি দিন লাগবে না আপনার রেজাল্ট বের হতে আর আপনার সাকসেস এর জন্য আপনাকে কংগ্রাচুলেশন তবে আরও তো স্টুডেন্ট আছে দেখা যাক তারা কেমন ফলাফল করে ওটায় এখন দেখার পালা ।
ওকে স্যার তাহলে আমি কি এখন আসতে পারি ? ( senior Doctor Jokhon Bou )

হুম । নিশা চলে গেলে আমি কিছুক্ষণ তার দিকে তাকিয়ে থাকলাম তারপর আবার আমার কাজে মনোযোগ দিলাম এক এক করে সব স্টুডেন্টকে এক্সপেরিমেন্ট করতে দিলাম এবং তারা করল কিন্তু নিশার মত সাহস নিয়ে এরকম এক্সপেরিমেন্ট কেউ আর করতে পারলো না । নিশার সেলেকশন হওয়ার পর ওরকম জয়ের হাসি সে হাসানী তাই আমি নিচে সিলেট করলাম আমাদের স্টুডেন্ট হিসেবে । ( Doctor Jokhon Bou )

এবার পালা তাকে ডাক্তারি বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেওয়া হেড স্যার আমাকে বলেছিল আমার স্টুডেন্ট এর কাজ দেখে পছন্দ হবে আমি যাতে তাকে রাখি এবং সে সেলেক্টর পরে আমিও যাতে তাকে প্রশিক্ষণ দিই । ডাক্তারি বিষয় কারন আমি আমার মেডিকেল কলেজের হাই স্কোর করা স্টুডেন্ট আর এই কারণে হেডস্যার আমাকে অনেক পছন্দ করে ।

এদিকে নিশা বাসায় যাওয়ার পর আমি আর মা তাকে জিজ্ঞেস করল আমি কি সিলেক্ট হয়েছে কিনা ডাক্তারিতে তখন আমি আমার মাকে শান্তনা দিয়ে বললাম ইনশাআল্লাহ মা আশা করি আমি ডাক্তারি পরীক্ষায় সফল হব। আমার মা খুশি হয়ে বলল ইনশাআল্লাহ এখন যাও তোমার রুমে যেয়ে ফ্রেশ হয়ে এস আমি খাবার পারছি তোমার জন্য আমি মাকে ওকে ওকে বলে আমার রুমে চলে গেলাম ।

Doctor Jokhon Adure Bou

এদিকে রোহিত হেড স্যারকে যে নিশার কথা বলল তখন উনি রোহিত কে বলল আমার ভরসা ছিল যে এই মেয়েটা শেষ পর্যন্ত সিলেক্ট হবে ? আমি ওনাকে জিজ্ঞেস করলাম আপনি কেন নিশাকে এত বিশ্বাস করেছিলেন আর আপনি চিনে নেওয়া কিভাবে ওনাকে ?


ফ্রেশ হয়ে খাবার খেতে খেতে মার সাথে আমার ফ্রেন্ড এর বিষয়ে কিছু কথা বললাম তার পর খাবার শেষ করে আবার আমার রুমে চলে আসলাম ‌ ।

এদিকে হেডস্যার রোহিতকে বলল এখন না সময় হলে আমি নিজেই তোমাকে ডেকে নিজেই জানাবো । তবে একটা কথা বলে রাখি আর সেটা হলো আমার তোমাকে খুব পছন্দ হয়েছে । তখন আমি ওনাকে থ্যাংকস বললাম ‌ এবং বললাম যে আমি আগেই জানতাম যে ওনার আমাকে পছন্দ । উনি আমাকে বলতো তুমি যেটা জানো সেটাই হলো আমার তোমাকে স্টুডেন্ট হিসেবে পছন্দ হয়েছে কিন্তু আমি কিন্তু দুটা মিনিং বলছি । ( Doctor Jokhon adhure Bou )

ওনার কথা শুনে আমি বুঝতে পারলাম না তাই জিজ্ঞেস করতে যাব আর তখনই একটা ছেলে এসে ওনাকে বলল একটা ইমার্জেন্সি পেছনে রয়েছে তাকে এখনই দেখতে হবে তাই উনি আমাকে আসি বলে চলে গেলেন তার চিকিৎসার জন্য ।

অপরদিকে রুমে শুয়ে শুয়ে ভাবছি আচ্ছা আমার কি সত্যি সেই ইচ্ছা পূরণ হবে নাকি শুধু ওই ইচ্ছে পর্যন্ত সীমাবদ্ধ থাকবে আমার ডাক্তারি হওয়ার স্বপ্ন ?
আমাকে একটা বিষয় নিয়ে যে সার্চ করতে দিয়েছিল হেড ডাক্তার তাই আমি তা নিয়ে বিজি হয়ে পড়লাম ।


অপরদিকে চিন্তা করতে করতে নিচে যে কখন ঘুমিয়ে পড়েছিল তার টের পায়নি তাই ঘুম থেকে উঠে আসরের নামাজ পড়ে বারান্দায় ঘুরাঘুরি করছি আর কানে হেডফোন লাগিয়ে গান শুনছে। ( Doctor Jokhon adhure Bou )

এদিকে রিচার্জ শেষ হলো প্রায় সন্ধা আমি হেড স্যারের সাথে কিছু কথা ও না কে বিদায় জানিয়ে আমি আমার বাসায় গিয়ে ফ্রেশ হয়ে নামাজ পড়ে নিলাম ।
আমার নামাজ পড়া শেষ হলে আমি নিশার নামটা অনলাইনে দিয়ে দিলাম ।
এদিকে এদিকে নিশা অনলাইনের তার নাম চেক করে খুব খুশী হল কারন শেষে লেট হয়ে গেছে আর আমার যেই কলেজে ডাক্তারি পড়ার ইচ্ছা ছিল সেই কলেজেই ।

তখন আমি গিয়ে আমার মাকে খুশির খবরটা শুনতে শুনতে মা খুশি হয়ে আমাকে বলল- আলহামদুলিল্লাহ এখন তুই আর তোর বাবা একসাথে কাজ করবি আমি তোর বাবাকে খুশির সংবাদটা জানিয়াছি আমি আমার মাথা নাড়িয়ে বলে উনি চলে গেলেন ।

Senior Doctor Jokhon Bou

Doctor Jokhon Bou, Doctor Jokhon Adure Bou, Senior Doctor Jokhon Bou, Senior Doctor Jokhon Bou Golpo, senior meye jokhon bachelor doctor er bou, doctor jokhon bor,
Doctor Jokhon Bou

সকালে উঠে রেডি হচ্ছি তখনই নিশার কথা মনে পড়ল আবার যে আমি আজকে থেকেই নিশার মুখটা দেখতে পাবো ।
আমি ঘুম থেকে উঠে ফ্রেশ হয়ে ডাক্তারের আর ফোন পড়ে নিজেকে আয়নায় দেখতে লাগলাম আর বলতে লাগলাম মাশাল্লাহ কি সুন্দর লাগছে আমাকে আমি আমার নিজের প্রশংসা আমার নিজের করা শেষ হয় না আমি আম্মুকে বলে আব্বুর সাথে গেলাম সেই মেডিকেল কলেজে । আব্বু আমাকে গাড়ি থেকে নামিয়ে দিয়ে বললো চলো আজকে তুমি যে আমার মেয়ে সেটা আমি তোকে জানিয়ে দেবো আমি জিজ্ঞেস করলাম আব্বু এ রোহিত টা কে ?

ভার্সিটিতে আসার পরে আমি ল্যাবে গিয়ে অপেক্ষা করছি নীশার জন্য যে কখন আমি নিশাকে ডাক্তার এ বিষয়ে সব কিছু প্রশিক্ষণ দেবো ।
আব্বু আমাকে বলল তুমি যে ছেলেটা কে তোমার এক্সাম নিতে দেখেছিল তোমার এক্সাম টাইমে সেই ছেলেটার নাম হল রোহিত ? আমি বললাম ও আচ্ছা তাহলে উনার নামে ছিল আব্বু আমাকে বলে আমি বললাম আচ্ছা চলো তাহলে । আব্বু আমাকে বলল চলো । ( Doctor Jokhon Bou )

হেড স্যারের পরেই নিশাকে আসতে দেখে আমি ভাবলাম মনে হয় হেড স্যারের পরেই নিশা এসেছে তাই নিশা শোষিত হেড স্যার কে আগে আসতে দিয়েছে এবং পরে নিশা আসছে ।


আমি আর আব্বু আসলে রোহিত দাঁড়িয়ে গিয়ে আমার আব্বুকে ছালাম দিল রহিত জানতে পারবে আমি আর হেড স্যারের ডাক্তারি পরিচয় কি হয় কিন্তু আগে আমি আপনাদের আমার আর রোহিতের পরিচয়টা দিয়েন এই আমি নিশা এবার ভার্সিটিতে ডাক্তারের চান্স পেয়ে সে বিষয়ে প্রশিক্ষণ নিতে এসেছি অলরেডি আপনারা আপনারা জেনে গেছেন ।

তো বন্ধুরা আপনারা আমাদের Facebook page টি ফলো করুন – Click here

আমি আর আমি আমার বাবা মায়ের একমাত্র বড় মেয়ে আর আমার একটা ছোট ভাই আছে আমার বাবা পেশায় একজন বড় ডাক্তার এবং আমার মা একজন গৃহিনী । আব্বু আমাকে যার সাথে পরিচয় করাতে নিয়ে এসেছে তার নাম হল রোহিত । সেও একজন ডাক্তার স্মার্ট ছেলে লম্বা এবং চুলগুলো কাটিং একটু আলাদা সবার থেকে ওনাকে দেখতে আমার বেশ ভালো লাগে ।

হেডস্যার ডাক্তার আমাকে নিশার সাথে পরিচয় করিয়ে দিলে আমি পুরো অবাক হয়ে চেয়ে রইলাম উনার দিকে স্যার আমাকে বলল আমি তোমাকে আগেই বলতে চেয়েছিলাম । কিন্তু মনে করলাম আমার মেয়ে আগে ডাক্তারের লাইনে নিজের পায়ে দাঁড়াক । তারপর তোমাকে জানাবো । আমি ওনাকে বললাম হুয়াটস ওকে স্যার এন্ড নাইস টু মিট ইউ নিশা ?

Senior Doctor Jokhon Bou Golpo


থ্যাংকস আর আব্বু আমাকে বলল আজকে থেকেই রোহিত তোমাকে ডাক্তারের বিষয়ে প্রশিক্ষণ দেবে ‌। আমি আচ্ছা বাবা বলে দিলাম আব্বু বললো এখন আমার কিছু ইম্পর্টেন্ট রোগী দেখতে হবে তাই আমি গেলাম তুমি থাকো আমার মামনি আমি ওনাকে ওকে বলে দিলাম আর আমার বাবা চলে গেল ।

আমি নিশাকে বললাম একটা কথা তোমাকে কি জিজ্ঞেস করতে পারি ।
আমি ওনাকে বললাম হুম বলেন আর আমাকে তুমি করে বলবেন যেহেতু আমি আপনার থেকে বয়সে অনেক ছোট হই ।


আচ্ছা তুমি আমাকে এখন থেকে ভাইয়া বলে ডাক কারণ স্যার ডাকটা আমি তোমার মুখ থেকে শুনতে চাই না ।
কেন আমি আবার কি করলাম যে আপনি আমার মুখ থেকে স্যার ডাক্তার ডাকটা শুনতে চান না । ( senior Doctor Jokhon Bou )


না না আসলে তেমন কিছু হয়নি আমার তোমাকে পছন্দ হয়েছে তাই আমি চাইনা এমন একটা সুন্দরী মেয়ে মুখ থেকে স্যার ডাকটা বারবার শুনতে ।

আমি আমার মনে মনে ভাবলাম আচ্ছা আচ্ছা বাবা যে আপনি তাহলে ফ্লার্ট করা শুরু করে দিয়েছেন আমি আস্তে না আসতেই ।
এসকিউজমি তুমি কিছু বলছো না যে তোমার যদি আমাকে স্যার ঢাকার ইচ্ছে হয় তাহলে ডাকতে পারো নো প্রবলেম আমি কিছু মনে করব না ।


আমি আপনাকে ভাইয়া বলে ডাকবো কিন্তু এখন কথা হচ্ছে আমি ডাক্তারি কোন কাজের উপর প্রশিক্ষণ নেব এটাই সবথেকে বড় ব্যাপার ।
আমি খেয়াল করলাম মেয়েটা সরাসরি কথা বলে আর এই বিভেয়ার আর আমার কাছে খুব ভালো লাগলো আমি কিছু কাজ করব আর তুমি আমাকে হেল্প করবে তাতে তোমারও শিখা হয়ে যাবে কি বল ।

ঠিক আছে ভাইয়া তুমি যেটা মনে করো ।
আমি কাজ করছি আর নিশা আমাকে হেল্প করছে নিশাকে শেখানোর জন্য আমিও তার হাত ধরে হেল্প করছি আর ঠিক তখনই নিশার চুল আমার গালের সাথে এসে লাগল যা আমার কাছে অন্য আর একটা অনুভুতির সৃষ্টি হল আমার শরীরে । (To bundhura amader ajker Doctor Jokhon Adure Bou ta kamon hoyeche niche comment kore janaben)


আমি খেয়াল করলাম আমার চুল বারবার উড়েছে বাতাসে তাই আমি আমার ব্যাগ থেকে হেয়ার ক্লিপ টা বার করে আমার চুলে আটকে দিলাম ।
ইস খোলা চুল এইতো কত সুন্দর দেখাচ্ছিলো কেন যে সে তার চুল টা বাজতে গেল আমি নিশাকে ডাক্তার এ বিষয়ে সব কিছু শিখিয়ে দিলাম আমার বিকেল হয়ে গেল কাজ শেষ করতে আর নিশাকে প্রশিক্ষণ দিতে দিতে ।

আব্বু এসে আমাদেরকে বলল সুলতানা তুমি কি সব কাজ শিখে নিয়েছে রোহিতের কাছ থেকে ? আমি উত্তরায় হ্যাঁ বলে দিলাম ।
আমি নেশার আব্বুকে বললাম যে নিশা একটি মেধাবী ছাত্রী তাই তাকে শিখাতে আর বেশি কষ্ট করতে হয়নি আমাকে ।।

senior meye jokhon bachelor doctor er bou


আব্বু খুশি হয়ে আমাকে বলল দ্যাটস লাইক এ গুড গার্ল মাই ডটার।
আমি হেড স্যারকে বললাম আঙ্কেল আমার বাসায় যেতে হবে এখন আমি আসি তাহলে যেহেতু আমাদের ডিউটি শেষ । তাই স্যারকে আংকেল বলে তাকা যেতেই পারে আঙ্কেল আমাকে বলল কিন্তু কালকে তুমি আমার বাসায় সন্ধ্যার দিকে আসবা তোমার পরিবারকে নিয়ে কারণ আমি দাওয়াত দিলাম তোমাদের জন্য ।

আমি বাবার কথা একটু বুঝে উঠতে পারলাম না কালকে তো কোন অ্যাকশন নেই তাহলে আব্বু হটাত দাওয়াতের কথা কেন বলল ওই রোহিত ভাইয়াকে ?

আমি আঙ্কেল কে জিজ্ঞেস করলাম যে কালকে কি কোনো উপলক্ষ আছে কিনা তাদের বাসায় তখন আঙ্কেল আমাকে না বললেন আমি জিজ্ঞেস করলাম তাহলে আঙ্কেল কিসের দাওয়াত দিচ্ছেন আপনি ? (To bundhura amader ajker Doctor Jokhon Adure Bou ta kamon hoyeche niche comment kore janaben)

আব্বু রোহিতকে তখন বলল আছে একটা জরুরী বিষয় তাই তোমার বাবা মার সাথে আমি কথা বলতে চাই ।
আমার মনে হলো এই স্কুলের প্রিন্সিপাল যেমন গার্জেন দের ডাকে তাদের বাচ্চারা কোন ভুল করলে তেমনি আমার কোন ভুলের কারণে আংকেল আমার আব্বু আম্মুকে থাকতে চাইছেন আমি আর কি আচ্ছা বলে দিলাম আঙ্কেলকে ‌ ?‌

নিশা আচ্ছা বলে আমাদের বাই বলে আব্বু আর আমি ওনাকে বাই বলে যে যার নিজের বাসায় চলে গেলাম।
আমি আমার গাড়ি দিয়ে বাসায় যেতে যেতে ভাবছি কি এমন কথা যা আমাকে না বলে আমার বাবা-মাকে বলতে চাচ্ছেন ??


আমি আর আব্বু আজকে রিস্কা করে যাচ্ছি কিছুক্ষণ পর আব্বু আমাকে জিজ্ঞেস করলো আচ্ছা তোর রোহিত ছেলেটা কে কেমন লাগে আব্বুর কথায় আমি আব্বুর দিকে তাকিয়ে বললাম কেমন লাগবে মানে বুঝলাম না ?
অপরদিকে বাসায় এসে ফ্রেশ হয়ে কিছু খাওয়ার ইচ্ছে হলোনা রোহিতের তাই তাড়াতাড়ি যে ঘুমিয়ে পড়ল । (To bundhura amader ajker Senior Doctor Jokhon Bou ta kamon hoyeche niche comment kore janaben)

এদিকে নিশাকে তার বাবা বলল আমি যদি তোর সাথে রোহিতের বিয়েটা ঠিক করি তাহলে তুই কি রাগ করবে আমি আব্বুকে বললাম কি বল আব্বু আমি তো মাত্র ডাক্তারে লাইনে পড়াশোনা করছি । আব্বু আমাকে বলল তাতে কি হয়েছে বিয়ের পরও তুই ডাক্তারের লাইনে পড়বি ‌।

আমি আমার আব্বুকে বললাম আচ্ছা যদি আমাকে বিয়ের পরও রোহিত আর তার পরিবার আমাকে পড়াশোনা করতে দেয় তাহলে আমার বিয়েতে কোন আপত্তি নেই এই বিয়েতে । আব্বু আমাকে বলল থ্যাংকস মাই ডটার আমি আমার আব্বুকে ওয়েলকাম বললাম ।

ঘুম থেকে উঠে নামাজ পড়ে আব্বু আম্মুর রুমে গিয়ে আঙ্কেলের কথাটা তাদেরকে জানালাম তারা আমাকে বলল এভাবে তো একজনের বাসায় যাওয়া যায় না তুমি তোমার আংকেলকে আমাদের সাথে ফোন কলে কথা বলিয়ে দাও আমি আচ্ছা বললাম ।
বাসায় আসার পর সন্ধ্যার দিকে আব্বু কার সাথে জানি কলে কথা বলছে আর হাসিমুখে তাদেরকে আমাদের বাসায় আসার ইনভাইট করেছে । ( Doctor Jokhon Bou )

সন্ধ্যায় আব্বু আম্মুর সাথে কথা বলার পর আব্বু আম্মু নিশার বাসায় যেতে রাজি হয় আঙ্কেল আমার সাথে কথা বলতে চেয়েছিল আমি ওনাদের সাথে কথা বলে উনি আমাকে জিজ্ঞেস করল যে আমার আর নিশার বিয়ে দিতে চাই আমি তাতেই রাজি কিনা আমি উনার কথায় হ্যাঁ বলে উনি আমাকে আচ্ছা বাবা রাখি বলে কল কেটে দেয় আমি আজকে খুব খুশি সেটা আপনাদেরকে বলে বোঝাতে পারবো না । এটা শোনার পর থেকে যে নিশার বাবা আমাদের বিয়ে দিতে চাই । আর আব্বু আম্মুর সাথে কথা বলে জানলাম যে তারা ঠিক করেছে যে দুপুরের দিকে তাদের বাসায় যাবে কারণ সময় বোধলে দিয়েছে তারা ‌।

আজকে সকালে আব্বু আমাকে বলল তারাতারি গোসল করে রেডি হয়ে নিতে কারণ রোহিতরা আমাদের বাসায় আসবে আমি আব্বুকে ওকে বলে আমার রুমে গিয়ে ফ্রেশ হয়ে রেডি হয়ে আমি সহ আমাদের পরিবার অপেক্ষা করছি রোহিতের জন্য । (To bundhura amader ajker Senior Doctor Jokhon Bou ta kamon hoyeche niche comment kore janaben)


নিশার বাসায় আসার পরে আমি আঙ্কেল আন্টি কে সালাম দিলাম তারা আমাকে আর আমার পরিবারকে বসতে বললেন সবাই মিলে কথাবাত্রা বলছে তখনই আংকেল আমার আব্বু আম্মুকে বলল যে আমার আব্বু আম্মুর অনুমতি থাকলে আমরা যাতে নিশার রুমে যেয়ে কিছু কথা বলে নেই তারাও বলল হ্যাঁ অবশ্যই ।


তখন আমি রোহিত ভাইয়াকে নিয়ে গেলাম আমার রুমে ?
আমি একটু লজ্জা পাচ্ছি কেউই কোনো কথা বলছি না ‌ একটু পরে আমি মুচকি হাসি দিয়ে বললাম আমার তো তোমাকে অনেক পছন্দ হয়েছে কিন্তু তোমার কি আমার পছন্দ হয়েছে ? ( Doctor Jokhon adhure Bou )
আমি হ্যাঁ বললে উনি আমাকে বলল আমাকে আপনার ফ্রেন্ডের মত মনে করতে পারেন কারণ স্বামীর প্রথম কর্তব্য হলো তার ওয়াইফ এর সুবিধা অসুবিধা দেখা আর তাই আমি আপনার ফ্রেন্ড হতে চাই । তাছাড়া একজন ফ্রেন্ড আরেকজন ফ্রেন্ডকে তার সুবিধা-অসুবিধা কথা বলতে কম্পিটেবল ফিল করে তাই আমি চাই আপনার ফ্রেন্ড হতে । ওনার সব কথা শুনে আমার অনেক ভালো লাগলো ।

Doctor Jokhon Bor

doctor jokhon bor
doctor jokhon bor

আচ্ছা আমি তো অনেকক্ষণ থেকে কথা বলছি তুমি এবার কিছু বল?
আমি ওনাকে বললাম আমি রাজি এই বিয়েতে ‌।
আল্লাহ হামদুলিল্লাহ তুমি আমাকে এখন থেকে রোহিত বলে ডাকবা আর আপনি বা তুমি বলবা না ওকে ?

ওকে আমি আর রোহিত নিচে নেমে এলাম সবার কাছ থেকে জানতে পারলাম যে আমাদের বিয়ে আগামী রবিবার । তারা সবাই যাওয়ার পর আমি আব্বুকে জিজ্ঞেস করলাম যে তারা রাজি কিনা আমাকে পড়াশোনা করতে দিতে আব্বু আমাকে হ্যাঁ ?‌ বলে আমার ইচ্ছা হলে আমি আমার রুমে চলে গেলাম । (To bundhura amader ajker Senior Doctor Jokhon Bou ta kamon hoyeche niche comment kore janaben)


আমাদের বিয়ে আজকে শেষ হলো শেষ হওয়ার পরে আমি অপেক্ষা করছি আমার বইয়ের জন্য কারন সে আমাদের রুমে এসে ফ্রেশ হতে ওয়াশরুমে চলে গিয়েছে ।
ফ্রেশ হয়ে এসে আমি রোহিতের পাশে বসলাম ।


তোমাকে ফিরে যাওয়ার পরে এত সুন্দর লাগছে কেন আমার নিশা । আমি নেশার ঘরে আমার ঠোট দিয়ে আলতো করে কিস করতে থাকলাম তার গলা হালকা কামড় দিয়ে কিস দিলাম তার ঠোটে আমার ঠোট ডুবিয়ে দিয়ে একে অপরের ঠোটের স্বাদ গ্রহণ করতে থাকলাম । আর নিশা কে বললাম এই যে নিশা আজ তোমার নেশায় আমি নেশা করতে চাই । আল্লাহ হাফেজ ।

তো বন্ধুরা Senior Doctor Jokhon Bou 2022 টি এখানে শেষ করলাম। আমাদের আজকের বাস্তব Doctor Jokhon Bou টি আপনাদের কেমন লেগেছে অবশ্যই নিচের কমেন্ট করে জানাবেন । আর নিয়মিত এরকম Doctor Jokhon Adure Bou পেতে আমাদের সাথে থাকবে।

গল্প টি ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করবেন

Leave a Comment