বুদ্ধিমান নাপিত – Ek bangla rupkothar golpo 2022

আজকের আলোচনার বিষয় হচ্ছে বুদ্ধিমান নাপিত – Ek Bangla Rupkothar golpo Cartoon 2022 . তো বন্ধুরা এই পোস্টে জানতে পারবেন যে কিভাবে একজন না পেয়ে তার বুদ্ধি খাটিয়ে পন্ডিত সেজে পুরু গ্রামকে বোকা বানাচ্ছে ।

বুদ্ধিমান নাপিত,rupkothar golpo, rupkothargolpo, bangla rupkothar golpo, rupkothar golpo 2022, rupkothar golpo bangla, rupkothar golpo rupkothar golpo, golpo rupkothar golpo,
Bangla rupkothar golpo 2022

একটি গ্রামে একটি বুদ্ধিমান নাপিত থাকতো । সেই গ্রামের একটা জাগ্রত কালীমন্দিরে সে প্রতিদিন কাজকর্ম করতে যেত । আর সেখানকার পুরোহিতের কমবেশি সমস্ত কাজ সে করত ।
এই করতে করতে অনেকটা দিন হয়ে গেল আর সে সমস্ত কিছু শিখে নিয়েছে যা একটা পুরোহিত করতে পারে ।


তার পরদিন একদিন পুরোহিতের কাছে গেল সে আর বল্লো পেন্নাম পুরোহিত মশাই একটা কথা বলার ছিল ।
পুরোহিত মশাই বলল কি বলবে বল না ।
তখন নাপিত বলল দেখুন আমি এত বছর থেকে নাপিত গিরি করছি । আর আপনার সঙ্গে থেকে পুজো আচ্ছা সবকিছু আমি শিখে নিয়েছি । মন্ত্র পড়া ,যঞ্জ করা আমি সবই শিখে নিয়েছি আপনার যজমানের বাড়িতে সব কিছুই তো আমি করি । তবু তো সম্মান তারা আপনাকে করে । আর আমাকে নাপিতের ছেলে নাপিতের ছেলে বলে মশকরা করে ।

Bangla Rupkothar Golpo

তখন পুরোহিত মশাই বলল বুঝলাম এতক্ষণে তোর ব্যাপারটা তো তুই যার ছেলে তোকে তো তাই বলবে না । তো তুই যদি নাপিতের না কাজ করিস তাহলে খাবার জুটবে কি করে ।


তখন নাপিত বলল আমি ঠিক করেছি দূরে এক গ্রামে গিয়ে আমি পুরোহিত সেজে থাকবো । পুজো আচ্ছা করবো আর সম্মান পাবো । খেতেও পাবো ।
তখন পুরোহিত মশাই বললো কি বললি নাপিতের পো তুই বামন হয়ে পূজা-অর্চনা করবি । দূর হ হতচ্ছাড়া আমার সামনে থেকে ।

তখন নাপিত বলল তো না করার কি আছে শুনি লাগবে তো শুধু নামাবলী আর দুই পয়সার পইতে । তোমার সাথে এই তো আমার তফাৎ । তাহলে তুমি থাকো এই গ্রামে আমি চললাম । ( Bangla Rupkothar Golpo )


এই বলে সেখান থেকে সেই নাপিত রওনা দিলো পাশের দূরে এক গ্রামে যেখানে তাকে কেউ চিনে না । আর রাস্তায় যাচ্ছে আর মনে মনে বলছে সবাই আমাকে এখানে হেনস্থা করে আমি আর থাকব না এই গ্রামে । ওই বামন ঠাকুর এর চেয়ে আমি কিসে কম । মন্ত্র তন্ত্র প্রায়শ্চিত্ত পিন্ডদান সবই তো আমি জানি আর ওই পুরোহিতের থেকে আমি বেশি করি । তবুও লোকে আমাকে নাপিতি বলে খেপায় । চেনা মানুষ বলেই তো সবাই আমাকে বলে ।

এখানে যদি আমি থাকি তাহলে আমাকে জীবন বড়ই বামুনের চাকর হয়ে থাকতে হবে । আগে অন্য গ্রামে যাই আমিও দেখিয়ে দেবো আমি কি চিজ । বুদ্ধির জোরে কেমন করে ধন ওমান দুটোই সঞ্চয় করতে হয় ।
নইলে আমার নাম পরান প্রামানিক নয় । ( Bangla Rupkothar Golpo )

মাঝ রাস্তায় যেতে নাপিত এক গভীর জঙ্গলে তার পুরো পোশাক-আশাক পুরোহিতের মত করে নিল যাতে কেউ না চিনতে পারে যে সে নাপিত ছিল ।
যেতে যেতে সে একটা গ্রামে পৌঁছলো আর সে প্রথম বাড়িতে পুরহিত সেজে বাড়িতে ঢুকলো আর বলল ঘরে কেউ আছে গো । একটু টেস্টার জল পাওয়া যাবে আমি অনেক দূর থেকে এসেছি ।


তখন সে বাড়ির মালিক বলল কে ডাকে ।
তখন মনে মনে নাপিত বলল একটা চাল দিয়ে দেখি -নমস্কার আমি অনেক দূর থেকে এসেছি আপনাদের গ্রামে । আমি পরান চক্রবর্তী । পূজা পাঠ করে বেড়ায় । অনেক দূর থেকে আসছি না কেউ যদি বিশ্রামের আশ্রয় দিত কিছুদিন থাকতে চাই । তবে তাকে আমি অনেক আশীর্বাদ করতাম ।

আগে যদি আপনি কৃপা করেন আমার বাড়িতে কিছুদিন থাকতে পারেন । আমি কাইফের ছেলে বামন মানুষের পায়ের ধুলো পড়লে গৃহস্হের মঙ্গল হয় শুনেছি । আমি বরং আপনার জল খাবারের ব্যবস্থা করি ।

তখন নাপিত মনে মনে বলল তীর টা মনে হয় ঠিক নেশা নাই লেগেছে । তবে বেশ বেশ । তাই হবে বাবু । তবে কিন্তু আমি সব পাগ (খাবার) অনুগ্রহ করে থাকি ।
যা আপনার আদেশ । ( Bangla Rupkothar Golpo )


সেদিন থেকে সেই পুরোহিত মানে নাপিত সে গ্রামের পুরোহিত হয়ে গেল । আর গ্রামের ছোট ছেলেদের পড়াতে শুরু করলো ।
কিছুদিন যেতেই ঐ গ্রামের একটা লোক এলো সেই পুরোহিতের কাছে ।
সেই ব্যক্তি বলল পেন্নাম ঠাকুর মশাই ।


কি ব্যাপার রঘু কি হয়েছে তোমার । সকাল বেলায় এসে হাজির কেন ?
একটা বিধান নিতে এসেছি আমি কি এটা পাপ করেছি সেটা আপনার কাছে জানতে চাই?
তোমার কি হয়েছে কি? ( Bangla Rupkothar Golpo )


আগে ঠাকুরমশাই রাতে ঘুমের মধ্যে আমার পা লক্ষীর ঘটের দিকে ঘুরে গিয়েছিল আর হুড়মুড়িয়ে উঠতে গিয়ে উলটে গেল মায়ের ঘট ।
তাই আমার গিন্নী বলল যে আমি এটা অনেক বড় পাপ করেছি ।


তখন আবার পুরহিত মানে নাপিত মনে মনে ভাবল কেমন আহমদ বোকা ভাবো এ কে একটু ঝালিয়ে নিয়ে ইনকাম করতে হবে । সে তো হয়েছেই তো বাপ সে তো হয়েছেই তুই যে লক্ষ্মীর ঘট ফেলেছিস যাকে বলে হাতের লক্ষ্মী কে একেবারে পায়ে ঢেলেছে । তাই তোর তো পাপ লাগবে । তার জন্য তোকে একটা যঞ্জ করতে হবে । সে এক ভারি যজ্ঞের যোগ্য ।


তুই চাল ডাল আলু ফল যা যা লাগে সব রেডি করে রাখবি আমি তোর বাড়িতে গিয়ে যঞ্জ করে আসবো । আপনি বাঁচালেন ঠাকুর মশাই আপনি বাঁচালেন আমাকে । আমি বাড়ি গিয়ে সব রেডি করে রাখছি । ( Rupkothar Golpo dekhte chai )

তখন নাপিত মনে মনে বলল কি মজা এইতো হয়েছে আমার দাপট শুরু ।
এভাবে কিছুদিন যেতে লাগলো । তারপর হঠাৎ ওই গ্রামের একজন বৃদ্ধ মা-বাবা এলো । পেন্নাম ঠাকুরমশাই একটা আর্জেন্ট ছিল ।
আগে আমাদের একটা মেয়ে আছে । তার নাম উর্মিলা ।


সেতো বুঝলাম তারপর বলুন কি সমস্যা আপনাদের ।
কি আর বলব থাক মশাই বলেন আগে গায়ের রং শ্যামলা বলে আমার মেয়েকে কেউ বিয়ে করতে চায় না । বয়স বাড়ছে তাই বলছিলাম আপনি তো এখনো অবিবাহিত । আপনি যদি ।
তখন মেয়েটির মা বলল আপনি তো কুলীন ব্রাহ্মণ দয়া করে যদি আমার মেয়েটাকে আমাদের মেয়েটাকে উদ্ধার করতেন ।

তখন নাপিত মনে মনে বলল বাবা এ তো দেখছি গাছে না উঠতেই ফল পেয়ে গেলাম । এদেরকে আর একটু ঝালিয়ে দেখি কিছু পাই নাকি । আমাকে বড় বামভন ভেবে মেয়েদের সাথে বিয়ে দিতে চাইছে ।
সে কি বলছেন আপনারা । সে আবার হয় নাকি ? ( Bangla Rupkothar Golpo 2022 )


আমার কোন চালচুলো নেই ? আজ আছে কাল নেই কোথায় থাকব তার ঠিকানা নেই ? আমি পরের বাড়িতে থাকি ?
আগে ঠাকুরমশাই আমার নিজস্ব দুটো বাড়ি আছে তার মধ্যে একটা না তো আপনারা থাকবে । আমি বাড়িটা হয়তো আপনাকে যৌতুক হিসেবে দিয়ে দেবো ।


তখন নাপিত বলল দেখুন কালো মেয়ে বিয়ে করা আমার তেমন উৎসাহ নেই । তবে আপনারা হলেন উচ্চ জাতি । বিপদে যখন পড়েছেন তখন তো উদ্ধার করতেই হবে । আপনাদের উদ্ধার করা আমার কর্তব্য আপনারা এক কাজ করেন। বিবাহের জন্য ব্যবস্থা করুন ।


তারপর নাপিত সেই মেয়েটাকে বিয়ে করল আর তাকে পুরোহিতিনী নিয়ে নিল । কিন্তু সে জানে না যে সে নাপেত্নী হলো ।
তার পরদিন তার বাসর রাতে সেই মেয়েকে বলল এইযে বামুনের মেয়ে । আগে আমার জন্য এক গ্লাস জল আনো দেখি ।
ঠিক আছে এনে দিচ্ছি। তবে এই নিন জল । ( Bangla Rupkothar Golpo cartoon )

তখন নাপিত বলল দেখো বাবু তুমি একটা কালো মেয়ে তোমার বাবা-মা হাতে-পায়ে ধরেছে বলেই তোমার মত এতো কালো মেয়েকে আমি বিয়ে করেছি । এই কথা খানা তুমি যেন মনে রেখো । আমার সেবাযত্ন মন দিয়ে করো ।

না হলে কিন্তু কদিন পরেই তোমার জন্য সুন্দরী একটা সতীন নিয়ে আসব । বুঝেছ তুমি । বেশ তবে তুমি এবার আমার পা দুটো ভালো করে দেবে দাও । বড় ব্যথা করছে অনেকক্ষণ থেকে হাঁটাহাঁটি করেছি তো তাই ।

এইভাবে নাপিত তার পুরোহিত গিরি চালাতে থাকলো সেই গ্রামে ।
হঠাৎ একদিন তাদের গ্রামে এক জ্যোতিষী এল কিন্তু সেই যদি সেটা সেই নাপিতের গ্রামেরই ছিল ।


যখন সে পুরোহিত মানে নাপিত সে রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিল তখন সে জ্যোতিষীর ঘরের সামনে অনেক লোকের ভিড় দেখতে পেল । তখন সে জিজ্ঞেস করল কি হয়েছে ভাই এখানে এত লোকের ভিড় কেন ? ( Bangla Rupkothar Golpo )

একটি লোক তখন বলল জানো না বুঝি এখানে একজন জ্যোতিষী এসেছে ? হাত দেখে তিনি মানুষের ভূত ভবিষ্যৎ বলে দিতে পারেন । তখন নাপিত মনে মনে ভাবল তবে একবার যেয়ে দেখি আমার ভাগ্যে কী কী লেখা আছে । ভাগ্যটা আগে থেকে জানা থাকলে মন্দ কি ?

গিয়ে দেখে তো নাপিতের মাথা খারাপ দেখলো তার গ্রামের সেই জ্যোতিষী । প্রথমে জ্যোতিষী বুঝতে পারেনি যে সে এই সেই নাপিত । যখন তার হাত দেখল তখন বলল আপনার তো বৃহস্পতি তুঙ্গে কান্ডের অবস্থান তো – আচ্ছা আপনার মুখটা চেনা চেনা লাগছে । ( বুদ্ধিমান নাপিত )

আরোও পড়ুন – rupkothar golpo all post


শে কি করে হবে আপনি তো এই গ্রামে নতুন ?
হ্যাঁ হ্যাঁ মনে পড়েছে মনে পড়েছে তুমি আমাদের সেই পরান নাপিত না ? তো তুমি আর আমার বলে গায়ে দিয়ে পুরোহিত সেজে কেন আছো ?
এখন নাপিত ভয় পাই কাউকে জানিও না ভাই তার জন্য আমি তোমাকে যে কোন মূল্য দিতে রাজি আছি । সে অনেক কথা আমি এখানে পরান চক্রবর্তী ।

একজন কুলীন ব্রাহ্মণ ।
সেকি কাণ্ড বলো কি তুমি ?
তুমি কাউকে বলো না ভাই ?
আমি না হলে তোমাকে দশটা টাকা দিচ্ছি ? ( Bangla Rupkothar Golpo )


বেশ বেশ কিন্তু 10 টাকায় হবে না? তবে মাত্র 10 টাকাতে কতক্ষণ চুপ থাকি বল দেখি ?
তার কিছুক্ষণ স্ত্রী ও তার মা এলো ।
তখন জ্যোতিষী বলল আসুন আসুন মা জননী । তখন নাপিতের শ্বাশুড়ি বললো কে আমার মেয়ের হাত দেখে একটু বলে দিতে পারেন যে ওর কপালে কখনো সুখ হবে ।


কিমা স্বামীসোহাগ থেকে বঞ্চিত হয়ে দুঃখে জীবন কাটছে বুঝি ? তখন জ্যোতিষী জিজ্ঞেস করলো কে আপনার স্বামীর নাম কি ?
তখন নাপিতের বউ বলল পরান চক্রবর্তী যে একটু আগে আপনার এখান থেকে গেল ।


আপনি তো সবই দেখছেন জ্যোতিষী বাবু কি করলে আমার মেয়েটা সুখ পাবে যদি একটু বলে দেন ।
বেশ বেশ আপনারা কোন চিন্তা করবেন না আপনার মেয়েকে গোপন একটা আমি মন্ত্র দিয়ে দেবো স্বামী ঘরে ফেললে একটা মন্ত্র বলবে তাহলে স্বামী সুখ পেয়ে যাবে । ( Bangla Rupkothar Golpo )


একটা নরুল হাতে নিয়ে এই মন্ত্রটা পাঠ করলে ঠিক আপনার বস চলে আসবে । হ্যাঁ হ্যাঁ হ্যাঁ আর টু শব্দটি করবে না ।
তখন নাপিতের বউয়ের কানে ফিশ ফিশ ফিশ করে জ্যোতিষী সেই মন্ত্র দিল ।
তারপর সে রাতে বাড়ি ফিরে এলো তখন সেই পুরোহিত মানে নাপিত বললো এই-যে বামুনের মেয়ে এসো আমার পা টা একটু টিপে দাও ।


তখন বামুনের মেয়ে দাঁড়াও এক্ষুনি দিচ্ছি ।
ওখানে কি করছো তুমি বলো দেখি?
পেয়েছি এই যে এটা ?
কি এটা নরুল ? নুরুল নিয়ে করছো কি তুমি ?


তখন নাপিতের বউ সেই মন্ত্র বলতে লাগলো – আতা গাছে তোতা পাখি ডালিম গাছে মৌ গণক বলেন নাপিত ব্যাটা কুনিল ঘরের বউ ?
তুমি এগুলো কি বলছ গিন্নি ? ( Bangla Rupkothar Golpo )


কালকে যে জ্যোতিষী গণনা করে এসেছিল সেই আমাকে এই সব শিখিয়েছে ?
সর্বনাশ গণক বাটাতো মহাবাদ জাদ টাকা নিল আমাকে ফাঁসিয়ে ও গেল ।
সে যা বলেছে বলেছে এখন তুমি এসো ? তুমি যদি আর কাউকে বলো তাহলে তোমার কপালে দুঃখ আছে ? দেবো তোমার চুলের মুঠি ধরে ?


কি বললে কি তুমি তুমি আবার আবার মারবে । আতা গাছে তোতা পাখি ডালিম গাছে মৌ গণক বলেন নাপিত ব্যাটা কুনিল ঘরের বউ ?
আরে চুপ চুপ গিন্নি গ্রামের লোক জানতে পারলে আমাকে তো দিবে রাম ধোলাই । আমাকে মেরে বিন্দাবন দেখিয়ে দেবে । নানা গিন্নি আমি রঙ্গ করছিলাম তোমার সাথে গো ।


তুমি আমার সোনা বউ । আমি কি তোমাকে কখনো মারতে পারি ।
তখন নাপিতের বউ মনে মনে বলে আরে বা গনকঠাকুরের মন্ত্র তো কাজ করছে । এইযে শোনো সারাদিন অনেক কাজ করেছি এখন আমি আর কিছু করতে পারবোনা ।


আহা ঠিক আছে আর কিছু তোমাকে করতে হবে না । আমিতো আছি না । আমি তোমার সব কাজ করে দেবো ।
আজ আমার পায় এমন ব্যথা হয়েছে না এই শোনো না আজ আমার পা টা দেবে দিলে আরাম পেতাম । ( বুদ্ধিমান নাপিত )


তাই নাকি গিন্নি ও কই কই দেখি এইতো । দেখি দেখি দেখি দাড়াও আমি টিপে দিচ্ছি ।
তখন নাপিতের বউ মনে মনে ভাবলো আহ কি মন্ত্র ? মন্ত্রের কাজ তো প্রথম দিন থেকে শুরু হয়ে গেছে । কিন্তু এই মন্ত্রের অর্থ বা কি ।


তো বন্ধুরা আজকের মত গল্পটি এখানে গল্পটি থেকে আপনারা কি শিক্ষা পেলে অবশ্যই নিচে কমেন্ট করে জানাবেন আশা করি আপনাদের কে বলে দিতে হবে না ।

যদি Bangla Rupkothar golpo dekhte chai তাহলে আমাদের ওয়েবসাইট পিকে ফলো করুন ।

গল্প টি ভালো লাগলে অবশ্যই শেয়ার করবেন

1 thought on “বুদ্ধিমান নাপিত – Ek bangla rupkothar golpo 2022”

Leave a Comment