সিনিয়র আপু যখন বউ রোমান্টিক গল্প 2022

Share this post

হ্যালো বন্ধুরা আজকে আমরা সিনিয়র আপু যখন বউ রোমান্টিক গল্পের লিংক সকল পর্ব দেখতে পাবেন এই গল্পটা তে । তো গল্পটা শেষ পর্যন্ত পরবেন । আমি আপনাদের লেখক মিস্টার সুজন দাস সবেমাত্র আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে আমি আমার সিনিয়র আপুকে বিয়ে করেছি । আর এই হচ্ছে আমার মায়ের বান্ধবীর মেয়ে সে আমার থেকে বড় তাই তাকে আমি আপু বলে ডাকতাম কিন্তু যে তার সাথে আমার বিয়ে হবে সেটা আমি জানতাম না ।
প্রথমে বলতে গেলে আমার সিনিয়র আপুকে আমার একদমই ভালো লাগতো না ।

সেই জন্য আমি তাকে খুব বকা ঝকা এবং কটু কথা বলতাম এখন সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠার আগে তাকে বললাম এই যে আরোহী ম্যাডাম কি হয়েছে তোমার এতক্ষণ পর্যন্ত কেউ কি ঘুমিয়ে থাকে ।

সিনিয়র আপু যখন বউ

সিনিয়র আপু যখন বউ


আপু :- হ্যাঁ থাকে আমি থাকি আর আমার এখন দেরি হবে ।
আমি :-কেন তুমি রাতে খেয়ে ঘুমাতে পারোনি ।
আপু :- আসলে দাদিমা বেশি অসুস্থ হয়ে পড়েছিল তাই অনেক রাত পর্যন্ত জেগে ছিলাম ।
আমি :- কেন মিথ্যা কথা বলার একদম দরকার নাই দাদি মা এখন পর্যন্ত পুরোপুরি সুস্থ আছে ।
আপু :- না না কি বলেন আপনি আমি কোন মিথ্যা কথা বলবো মিথ্যা বলি নাইয়া আমি ।
আমি :- দেখো আরোহী আমি মেয়েদের চোখ দেখলে বুজতে পারে তারা মিথ্যা কথা বলে নাকি সত্য । আসলে তুমি সত্য করে বলতো কালকে রাতে কারো সাথে কথা বলুন তো ফোনে ।

আপু :- দেখো আমি কিন্তু এরকম না আপনার জানা উচিত আমি কেমন ? আমি গ্রামের একজন সহজ সরল মেয়ে আপনাদের শহরের ছেলেমেয়েদের তা হয়তো অভ্যাস আছে অনেকগুলো প্রেম করা এবং তারা করতেই পারে ।

আমি :-মানে তুমি কি কথাগুলো আমাকে বলতেছো নাকি ?
আপু :- না না আমি কেন আপনাকে বলতে যাব আপনি তো আমার প্রভু পরের স্থান আপনাকে কি আর সন্দেহ করলে চলে নাকি ।
আমি :- হ্যাঁ এটা মাথায় রাখবে আমাকে সন্দেহ কখনো করবে না আর আমি তোমাকে বলছি না তুমি আমার থেকে বয়সে একটু বড় হবে আমাকে কেন আপনি করে বলো তুমি করে বলতে পারো না ।
আপু :- তাতে আমি অবশ্যই পারি কিন্তু আমার মা বলেছে স্বামীকে আপনি করে বলতে ।
আমি :- তো তুমি কি এখানে বসে থাকবে না আমার জন্য কিছু নাস্তা তৈরি করবে।
আপু :- যে মশাই যাচ্ছি টেবিলে আছেন আমি নাস্তা তৈরি করে রাখছি ।


আমি :- একথা বলে আরে ওখান থেকে চলে গেল আসলে আরহী ছিলো আমার মায়ের বান্ধবীর একমাত্র মেয়ে সত্যি কথা বলতে আরোহী খুব সাদা সিদা পরিবারের মানুষ । আমি এইসব বুঝতাম না কিন্তু আমি আরোহীকে কিছুতেই নিজের করে নিতে পারতাম না ।
এর প্রধান কারণ হলো আমি একটা মেয়েকে ভালোবাসতাম কিন্তু সেই মেয়েটা আমাকে ছেড়ে চলে গিয়েছিল সেই থেকে কাউকে আর আমি ভালোবাসা দিতে চাই না যদি সে আমাকে ছেড়ে চলে যায় তবে তো আমি কষ্ট পাবো ।


আমি একটু তাড়াতাড়ি হয় ফ্রেশ হয়ে খাবার টেবিলে গেলাম গিয়ে আরোহীকে বললাম আচ্ছা আজকে নাস্তা । এইসব কি তৈরি করে রেখেছো আমি কি এসব খাই নাকি ।
আপু :- আমি যে মানে আমিতো মায়ের থেকে শুনলাম আপনার এইসব অনেক বেশি পছন্দ ।
আমি :- একটা সময়ে আমার এইসব অনেক বেশি পছন্দের ছিল কিন্তু এখন আমার পছন্দ না । তোমাকে তো বলেছি আমি আমার থেকে সব কাজের কথা আগে শুনতে ।


আপু :- জি আমি বুঝতে পেরেছি ক্ষমা করবেন আমাকে ।আমাকে আমার জন্য আপনার খাওয়াটার শেষ হলো আপনি কিছু মনে করবেন না আমি আবার রান্না করে দিচ্ছি আপনাকে ?
আমি :- যা তুমি রান্না করেছো তাতেই আমার পেট ভরেছে আর কোন কিছু খেতে লাগবে না আমাকে ।
আপু :- আচ্ছা আমি বুঝতে পারিনি আপনার পছন্দের খাবার কি যদি জানতাম তাহলে ভালো করে রান্না করতাম ।
আমি :-আজকে এমনিতেই শুক্রবার ।আজকে আমার অফিস বন্ধ আজকে আমি আশা করছি যে তোমার থেকে একটা ভালো খাবার খেতে পারবো কিন্তু সকালে যা করলে এতে বাকি দিনটা খারাপ যাবে মনে হয় ।
আপু :- আচ্ছা আপনি কি টেনশন করবেন না আমি এখনই আপনাকে রান্না করে ।
আমি :-তোমার রান্না তুমি কুত্তা দেখাও আমাকে খাওয়াতে লাগবেনা ।
আপু :- আপনি কি কুত্তা নাকি সেজন্য আমি কুত্তাকে খাওয়াবো আপনার খাবার টা কি করে হয় তাতে কখনো সম্ভব না ।

সিনিয়র আপু যখন বউ রোমান্টিক গল্প


আমি :- আসলে তোমাকে আমি যে কি করে বোঝাবো তা আমার মাথায় আসে না তুমি কুত্তা কে খাওয়াতে পারবে না তাহলে তুমি বিড়ালকে খাও আর যদি আমার খাবারটা না খাওয়াতে পারো তাহলে বাইরে রেখে দিয়ে এসো ।
আপু :- না আমি এইসব কোনটাই করবো না আপনি বিড়াল কি বিড়াল হলে আমি বিড়ালকে দিতাম । আপনার খাবার টা কি আর বিড়াল কে দেওয়া যাবে ।
আমি :-তুমি তো দেখতেছি একটা আজব মেয়ে আমার খাবার কুত্তাকে দিতে পারবেনা বিড়ালকে দিতে পারবে না কাউকে দিতে পারবে না তাহলে আবার খাবারটা কি খাবে আর তুমি কার সাথে আমাকে তুলনা করতে চাও সেটা সরাসরি বলতে পারো ।


আপু :- না না আমি আপনাকে কুত্তা বা বিড়ালের সাথে তুলনা করছি না এতে আমার পাপ হবে আপনার তুলনা আমি স্বয়ং আমার সাথে করবো এখন দিন আপনার খাবারগুলো আমি খেয়ে নি তাহলে হবে ।
আমি :- খাবার খেয়ে আমাকে তুমি রক্ষা করো ।
আপু :- আমি একটা কথা বলি আপনাকে । আপনি আবার কিছু মনে করবেন না তো ।
আমি :- দেখো এখন আমি তোমার কোন কথা শুনতে রাজি না আমি এখন আমার রুমে যাব এখন একটু রুমে যেতে দাও যখন শোনার ইচ্ছা হবে তখন শোনাবে এখন একটু বই পড়বো আমি ।
আপু :- আচ্ছা আপনি ততক্ষণ বই পড়ুন । আমি আপনার পছন্দের খাবারগুলো রান্না করে রাখি আমি রান্না করলে আপনি খাবেন কি ?
আমি :- না খাব না আমি তো দেখেছি এখন তোমাকে বিয়ে করে আমি ভুল করেছি ?এতটা জেদি কেন তুমি যখন খাবার এর ইচ্ছে হবে তখন বাইরে গিয়ে খাবো ।

আরো পড়ুন – EK NEW Short Love Story Bangla – শালী যখন বউ 2022


আপু :- না আপনি বাইরে গিয়ে খাবেন না বাইরে গিয়ে খেলে আপনার অসুখ হতে পারে ।
আমি :-দেখো আরোহী আমার মাথাটা গরম করিওনা আমার যা ইচ্ছে আমি তাই করবো ।
আপু :- আমায় কি আপনার সাথে নিবেন বাইরে খেতে গেলে ।
আমি :-শোনো তোমার ইচ্ছেটা তোমার মাঝে রেখে দাও তুমি এতক্ষণ আমার সাথে সাথে যা করলে তাতে তুমি যদি আমার থেকে বড় না হতে তাহলে এতক্ষণ যে আমি তোমাকে কি করতাম তা ভগবান ভালো করেই জানে ।


আপু :- আচ্ছা আমি গেলে যদি আপনার অসুবিধা হয় তাহলে আমি তা কখনোই যাবো না আপনি এখন আপনার রুমে যেতে পারেন ।
আমি :- আর হইয়া এই কথা শুনে আমি আর এক মুহূর্ত খাবার টেবিলে দেরী না করে আমার রুমে চলে এলাম এবং আবার টেবিলের মাঝে বই গুলো খুঁজে পেলাম এমন সময় একটা ডাইরি হাতে পেলাম ডাইরিটা একটু খুললেই দেখলাম ওখানে আরোহী জীবন কাহিনী আরোহী নিজে লিখেছে আমি আসলে পড়তে চাইনি কিন্তু একটু পরে নিলাম আমি যখনই ডাইরিটার প্রথম পৃষ্ঠা পড়লাম তখনই জানো আমি একটু হলেও আরোহী প্রতি দুর্বল হয়ে গেলাম আরোহীর ইচ্ছে গুলো ছিল রঙিন ভাবনার একমুঠো আকাশমনি ।


আমি তার দায়িত্ব পরে জানতে পারলাম আরোহী এতদিন কোনো রিলেশন করতো না তার ইচ্ছে ছিল নিজের হাজবেন্ডের সঙ্গে ভালোভাবে সময় কাটাবে এমন সময় আরোহী আমার রুমে আসতে আমি ডাইরিটা লুকিয়ে রাখলাম ।

আপু :- আপনি কি এখন ফ্রি আছেন আপনাকে আসলে একটা কথা বলতে এসেছি আপনি একটু হলেও শুনবে তাই না আমি আপনার থেকে যেহেতু একটু সিনিয়র ।
আমি :- হ্যাঁ বল কি বলতে চাও তুমি ।
আপু :- আসলে আমি যেটা বলতে চেয়েছি তা হলো আপনি কি সত্যি আমাকে ভালোবাসেন ।
আমি :-এতদিন তো এই প্রশ্ন করো নি আজকে হঠাৎ করে প্রশ্ন করলে কেন তোমার কি কোন সমস্যা মনে হচ্ছে ।

সিনিয়র আপু যখন বউ সকল পর্ব


আপু :- নানা আমার কেন এখানে কোন সমস্যা হবে মনে হয় আমি আসলে কয়েক দিন ধরে আপনার ব্যবহারে একটুও সন্তুষ্ট হচ্ছি না আর আমি সত্যি কথা বলতে দ্বিধা করে না । আপনার কি হয়েছে আমাকে একটু খুলে বলবেন ।
আমি :- নানা এমন কি হয়েছে আবার আমার এমন কিছুই হয়নি ।
আপু :- আপনি যেমন মেয়েদের চোখে দেখে বলতে পারেন সে কি অবস্থা আছে আমিও চেহারা দেখলেই বলতে পারি সে কোন অবস্থায় আছে আপনার কোন বিষয়ে টেনশন আপনি আমাকে খুলে বলতে পারেন ।

আমি :- আমিতো তোমাকে বলেছি আমার এমন কিছু হয়নি ।
আপু :- আমি তো আপনার বউ আমাকে তো আপনি সব কথা খুলে বলতে পারেন আর সব কথা জানার অধিকার আমার অবশ্যই আছে ।
আমি :- তুমি তো দেখছি অনেক জেদি মেয়ে আমার কথা বুঝতে পারছো না তোমাকে তো বললাম আমি কোন টেনশনই নেই ।
আপু :- কে বলেছে আপনার কোনো টেনশন নেই আপনি কি আমাকে সত্যি ভালোবাসেন নাকি জোর করে বিয়ে দিয়েছে তারা ? আপনি যদি আমাকে সত্যি ভালোবাসেন তবে আমার আজকে চোখের জলটা দেখতে পেতেন ।
আমি :-আরে মেয়ে তুমি কাঁদছো কেন আচ্ছা আমি তাহলে আমার জীবন বৃত্তান্ত এখন তোমাকে বলছি ।


আপু :- আচ্ছা বলুন আপনার সঙ্গে গল্প করা আমার খুব ইচ্ছে ।
আমি :- আসলে আরোহী আমি তোমাকে ভালবাসতাম না আমি ভালবাসতাম আমার একটা মনের মানুষকে । আমাদের প্রেম ছুঁয়ে দীর্ঘ ছয় মাস । কিন্তু পরবর্তী সেই মেয়েটা আমাকে ছেড়ে অন্য ছেলের হাত ধরে বিয়ে করে নিল ওই থেকে আমি আর কাউকে ভালবাসতে পারিনা আমার ভয় করে আমি যদি কাউকে ভালোবাসি সে যদি আমাকে ছেড়ে চলে যায় তাহলে আমি যে খুব কষ্ট পাব তোমার আমাকে বিয়ে করার কথা যখনই আসলো আমি প্রথমে রাজী হতে চেয়েছিলাম না ।
কিন্তু পরবর্তীতে আমাকে রাজি হতে হয়েছিল আমার দাদিমা তখন অসুস্থ ছিল তাঁর কথায় আমি বিয়ে করে নিয়েছি আমার মনে হয় তোমাকে বিয়ে করে তোমার জীবনটা আমি নষ্ট করে দিয়েছি বরং আমার জীবনকে আরো খারাপ করে দিয়েছি ।


আপু :- আমি আপনার থেকে সিনিয়ার এভাবে বুঝি আপনি এমনটা বলছেন আসলে আমি একটা সত্যি করে কথা বলি আমি আপনাকে অনেক বেশি ভালবাসতাম ।
আপনি হয়তো জানেন আমাদের পরিবারে ছোটবেলা থেকেই বলে এসেছিল আমাদেরকে বিয়ে দেবে তার জন্য আমি ক্লাস সিক্স থেকে আপনার প্রেমে পড়েছিলাম ।
আমি :- কেয়া পেয়ার হে তোমারা হাম দিওয়ানা হবে তাহলে তুমি সত্যি বলছো ।

আপু :- হ্যাঁ আমি আপনাকে সবকিছু সত্যি বলছি কোন মিথ্যা বলি না ।
আমি :-তাহলে আর কিসের জন্য দেরি তাহলে আজকে রাতে আমার বাসর হবে আসলে বিয়ের রাতে আমার তো কোন মন ছিলোনা কারণ তখন আমি ডিপ্রেশনে ভুগছিলাম সেজন্য তো আমাদের কিছুই করা হয়নি ।
আপু :- তাকে আমি জানিনা আপনি রাত চারটায় আমার রুমে প্রবেশ করেছেন আর প্রবেশ করে আপনি ঘুমিয়ে গেলেন আমি আর নতুন বউ হিসাবে কিছু বললাম না ।
আমি :- ধুর কি যে করছে আমি আসলেই আপনার এক্স গার্লফ্রেন্ড সেতো আমাকে প্যারা দিয়ে চলে গেছে তুমি তো আমাকে প্যারা দিয়ে চলে যাবে না ।
আপু :- শুনুন আপনি এত চিন্তা করো না আমাদের অতীত হয়েছে তো হয়েছে আপনি এখন বর্তমান আর ভবিষ্যৎ নিয়ে চিন্তা করুন ।

সিনিয়র আপু যখন বউ গল্পের লিংক


আমি :- আমিতো বর্তমানে দেখছি তখনি আমি তোমার সাথে প্রেম করবো আর ভবিষ্যতে তোমার থেকে বাচ্চা নেব ।
আপু :- সোনা এখনো কিন্তু এইসব করা যাবে না যা হবে আমাদের রাতে হবে ।
আমি :- আরে আরোহী তুমি তো দেখছি তুমি করে বলতে পারো আমি তো মনে করেছিলাম তুমি আপনি করে আমাকে সারাজীবন বলবে কিন্তু এখন দেখছি তুমি করে বলতে পারো তাহলে এতদিন কেন আমার সাথে ন্যাকামি করেছিলে ।
আপু :- আসলে আমার মা বলেছিল সবাইকে আপনি করে ডাকতে সেই জন্য তোমাকে আপনি করে দেখেছিলাম এতদিন ।


আমি :- হয়েছে এখন আর কিছু বলতে লাগবে না আমার শাশুড়ি আম্মাকে মাঝখানে রেখে দিও ।
আপু :- মানে কোথায় রেখে দেবো আমার মাকে ।
আমি :-ধুর কি যে বলো তুমি রেখে দেওয়া মানে সে কি রেখে দেওয়া বললাম আমি তো আরো বললাম তোমার মায়ের কথা এখন রেখে দাও এখন থেকে তুমি আমাকে তুমি করে ডাকবে আচ্ছা ।

আপু :- আচ্ছা আমি আমার মায়ের কথা কিন্তু এখন ।
আমি :- কি এখন কিসের চিন্তা করছো এখন তো হবে তখন যখন আমাদের বাচ্চা হবে ।
আপু :- আচ্ছা তুমি এই সব সময় বাচ্চা বাচ্চা করছ কেন এত বাচ্চা তুমি কি করবে শুনি ক্রিকেট টিম বানাবে নাকি ফুটবল টিম নাকি হাডুডুডু টিম কোনটা ?


আমি :- এত অভিজ্ঞতা নেই আমার কোনটা বানাবো তুমি তো আমার থেকে সিনিয়ার তো তুমি বলো ।
আপু :- আমি কেন বলব তুমি বলো বাচ্চাকে আমি দেবো না তুমি তো দিবে ।
আমি :- বাবা এখন দেখতেছি তোমার নেটটা এইমাত্র খুলে গেল তোমার সমস্যা দূর হয়ে গেল ।
আপু :- আমি কি ইন্টারনেটের ভান্ডারে নাকি তুমি সেই জন্য ভুল বলতেছো খুলে গেল ।
আমি :- হ্যাঁ তুমি তো ইন্টারনেটের ভান্ডারে তো বটে আর ভান্ডার না হলে কি এতক্ষণ ধরে আমার সঙ্গে কেমন ব্যবহার করতে জানি ।


আপু :- কেমন ব্যবহার করতাম আমাকে একটু বল
আমি :- কেমন বাবার একটু কাছে এসে বলো তোমার ঠোঁটে ঠোঁট রেখে বলে দিচ্ছি ?
আপু :- এখনতো আমি তোমাকে ফোটে ঠোঁট দেখে দিতে দেবো না একটু পরে দেবো আগে আমার প্রশ্নের উত্তর তো দাও এতগুলো বাচ্চা নিয়ে তুমি কি করবে ।
আমি :- আমি বেশী না দশটা বাচ্চা নিয়ে তোমাকে আমি বাচ্চাদের মা বানাবো এখন তোমাকে আমি একটার পর একটা পেগনেট করতে থাকবো তুমি রাজি তো ।
আপু :- খুব বেশী দুষ্টামি করতে ইচ্ছে করতেছে তাই না দরজাটা আগে অফ করে দিয়ে তারপর বুঝতে পারবে দুষ্টুমি কাকে বলে ।


আমি :- আচ্ছা দরজাটাকে অফ করে দাও তারপর আমি ঐদিকে দিচ্ছি দুষ্টুমি আসলে কাকে বলে ।
আপু :- এতক্ষণ পাশে থাকার জন্য আপনাদের সকলকে জানাই ধন্যবাদ নতুন নতুন গল্প পেতে আমাদের সঙ্গে থাকুন সবাইকে শেষ পর্যন্ত এটাই বলতে চাই যে এই করোনাকালে কাউকে আসলেই যদি ভালবেসে থাকেন তবে তার থেকে একটু দূরত্ব মেনশন করুন কারন অনেক সময় দূরত্বটা ভালোবাসা বৃদ্ধি করে দেয় ধন্যবাদ এতটা সময় ব্যয় করে পাশে থাকার জন্য এরকম গল্প পেতে আমাদের ওয়েবসাইটকে প্রতিনিয়ত ফলো করুন ।

  1. আরো এই রকম গল্প পড়ুন – Majorer Meye Jokhon Bou – Bangla Golpo 2022 । মেজরের মেয়ে যখন বউ
  2. এক্স গার্লফ্রেন্ড যখন বউ – প্রেমের কাহিনী গল্প 2022
  3. বিয়ের পর ভালোবাসার গল্প – বাড়িওয়ালার ছোট মেয়ে যখন বউ 2022
  4. Ek Romantic Bangla Golpo – ভাবির বোন যখন বউ 2022
  5. চাচাতো বোন যখন বউ রোমান্টিক ভালোবাসার গল্প 2022
  6. মামাতো বোন যখন বউ রোমান্টিক ভালোবাসার গল্প 2022
  7. খালাতো বোন যখন বউ রোমান্টিক ভালোবাসার গল্প 2022
  8. সিগারেট খোর বউ – Ek bangla love golpo 2022
  9. রাগী বান্ধবী যখন বউ || A Bangla Romantic Love Story 2021
  10. বকাটে ছেলের পুলিশিনী বউ – এক শিক্ষনীয় ছোট গল্প 2022

Share this post

Leave a Comment

x